আজ দেখে নেয়া যাক, নতুন নিস (niches) নিয়ে কীভাবে রিসার্চ (research) করবেন

এখন, আপনার যদি নির্দিষ্ট/নির্ধারিত অডিয়েন্স (audience) থেকে থাকে এবং আপনি যদি সেলিং (selling) এর জন্য নির্দিষ্ট নিসটিও (niche) খুজে পেয়ে থাকেন, তাহলে রিসার্চ (research) এর কাজ শুরু করে দেয়ার এখনই সঠিক সময় ! আমরা আগে যে প্রশ্ন গুলো করেছিলাম সেগুলো কি আপনার খেয়াল আছে? চলুন একটু আলাপ আলোচনা করা যাক, অনলাইন রিসোর্স (online resources) এর মাধ্যমে কীভাবে আমরা সেগুলোর উত্তর পেতে পারি।

  • কি ধরনের মানুষতাদের লিঙ্গ (gender), বয়স (age), অবস্থান (location) প্রভৃতি…?
  • পৃথিবীতে একই ধরনের টিশার্ট পরছে, এধরনের একজনকে পৃথিবীতে কোথায় খুজে পাব?
  • এই ধরনের মানুষেরা কি পছন্দ করে বা তাদের ইন্টারেস্ট (interests) কি?
  • অনলাইনের (online) কোন ভাগে তাদের গ্রুপ থেকে থাকে?
  • সোস্যাল মিডিয়ার (social media ) কোন গ্রুপে (groups) তাদের খুজে পাওয়া যায়?

কীভাবে “নিস রিসার্চ” (Niche Research) করবেন?

আপনার টার্গেট অডিয়েন্স (target audience) সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য প্রচুর ভিন্ন ভিন্ন টুল (tools) আছে, যেগুলো আপনি ব্যাবহার করতে পারেন। আমরা আপনাদের পরামর্শ দিয়ে থাকি যে, প্রথমে গুগল (Google) থেকে সাধারন সার্চ (search) শুরু করুন এবং তারপর সোস্যাল মিডিয়া ব্যাবহার করে আরও অনেক অনেক তথ্য খুজে বের করুন, বিশেষ করে ফেসবুকের (Facebook) পাওয়ারফুল টুল (powerful tool), অর্থাৎ অডিয়েন্স ইন্সাইটস (Audience Insights) থেকে খুঁজুন, যেখান থেকে অধিকাংশ Teespring সেলার (sellers) তাদের সম্ভাব্য বায়ারদের (potential buyers) খুজে বের করে থাকেন।

১. গুগল সার্চ (Google Search)

আপনার রিসার্চ (research) শুরু করার জন্য  গুগল (Google) খুবই ভাল একটি মাধ্যম। চলুন আমাদের উদাহরণ হিসেবে “প্যারামেডিকস” (“paramedics”) কে ধরে এগুনো যাক। আপনি যখন “প্যারামেডিক” (paramedics) শব্দটি লিখে গুগলে (Google) সার্চ করবেন তখন বেশ কিছু পরিচিত এবং সংশ্লিষ্ট কি-ওয়ার্ড (keywords) দেখতে পাবেন। যেমন ই.এম.টি.এস (EMTs), ই.এম.এস (EMS), এমারজেন্সী মেডিক্যাল রেস্পন্ডার (Emergency medical responder) এবং অ্যাম্বুলেন্স টেকনিসিয়ান (ambulance technician) ইত্যাদি।

২. ফেসবুক সার্চ (Facebook Search)

আপনি যদি ফেসবুক (Facebook) থেকে আপনার বায়ার (buyers) খুজে বের করার প্লান করে থাকেন তাহলে প্রথমেই আপনার নিস (niche) সম্পর্কিত গ্রুপ (groups) গুলো খুজে বের করুন। আপনি যদি ফেসবুকে (Facebook) “প্যারামেডিক” (paramedic) শব্দটি লিখে সার্চ (search) করেন তাহলে দেখতে পাবেন সেখানে প্রচুর কম্যুনিটি পেজ (community pages) আছে, যার মেম্বারের (members) সংখ্যা ৩০০,০০০ এরও বেশী; এখানে লক্ষনীয় দিকটি হল, যদি এই পেজের ফলোয়ার (followers) একটিভ (active) হয়ে থাক, তাহলে কন্টেন্ট (content) এর সাথে নিয়মিত এনগেজড (engage) থাকবে (তাদের এনগেজডমেন্টের লেভেল- লাইক/likes, কমেন্ট/comments), শেয়ার/shares – ই বলে দিতে পারে আপনার অ্যাডে/ads এর প্রতি তারা রেস্পন্সিভ/responsive হবে কিনা)। আপনি যদি ফেসবুক (Facebook) থেকে আপনার নিস (niche) খুজে বের করতে কোন অসুবিধার সম্মুক্ষীন হন তাহলে আপনার নিসের (niche) সাথে সম্পর্কিত অন্য আইটেম (terms) লিখে সার্চ করে দেখতে পারেন (আপনার অডিয়েন্স যদি “প্যারামেডিকস”/”paramedic” হয়ে থাকে, সেক্ষত্রে আপনি অন্য শব্দ যেমন ই.এম.টি.এস/EMTs, ই.এম.এস/EMS লিখে সার্চ/search করে দেখতে পারেন) ।আপনার নির্দিষ্ট নিস (niche) এর দিকে ফোকাস করার পূর্বেই আপনার একটি বৃহত্তর অডিয়েন্স (broader audience) খুজে বের করা উচিৎ।

৩. ফেসবুক অডিয়েন্স ইনসাইট (Facebook’s Audience Insight) (পেইড অ্যাডভারটাইসিং/Paid Advertising)

আপনার ব্যাবসায়ের সাথে সম্পর্কিত বা যাদের আপনার প্রয়োজন তাদের সম্পর্কে জানতে হবে…এর ফলে আপনি বুঝতে পারবেন তারা কি চায় এবং তার কি পছন্দ করে। এ ব্যাপারে আপনাকে সাহায্য করার জন্য আছে ফেসবুক অডিয়েন্স ইনসাইট (Facebook Audience) এর দ্বারা আপনি তাদের (বায়ারদের) অবস্থান (locations), পছন্দ (interests) এবং তাদের স্বভাব (behaviors) সম্পর্কে জানতে পারবেন, সুতরাং আপনি আপনার ব্যাবসার প্রসারের জন্য মেসেজ ক্রিয়েট (create messages) করতে পারেন।

১. আপনার অডিয়েন্স নির্ধারন করুন (Define Your Audience) : কাস্টম অডিয়েন্সে (Custom Audiences), ডেমগ্রাফিক (demographics), ইন্টারেস্ট (interests), বেহ্যাভিয়র (behaviors) এবং আরও অনেক কিছুর মাধ্যমে আপনি আপনার কাঙ্খিত অডিয়েন্স (audience) নির্ধারন করতে পারবেন।

২. আপনার অডিয়েন্স  বিশ্লেষন করুন (Explore Your Audience): তাদের ডেমগ্রাফিক (demographics), ইন্টারেস্ট (interests), বিহ্যাভিয়র (behaviors) সম্পর্কে তথ্য জানার জন্য এই ট্যাব (tabs) গুলোতে ক্লিক (Click) করুন।

৩. আপনার অডিয়েন্স সংরক্ষন করুন (Save Your Audience) : ভবিষ্যতে পুনরায় ব্যাবহারের জন্য সংরক্ষন করুন। আপনি, পাওয়ার এডিটর’স অডিয়েন্স সেকশনে (Power Editor’s Audiences section) এটি খুজে পাবেন।

৪. অ্যাড তৈরী করুন (Create Ad) : অ্যাড ক্রিয়েট (Create Ad) করে আপনার অডিয়েন্সের (audience) কাছে পৌছে যান।

আপনার পারফেক্ট অডিয়েন্স (perfect audience) খুজে পাওয়ার জন্য এটি খুবই পাওয়ারফুল (powerful) একটি টুল ( tool) যার ফলে আপনার অনেক সময় বাচবে (পাশাপাশি অর্থও সঞ্চয় হবে)। এখানে HERE ক্লিক (Click) করে আপনি এক্সপ্লোরিং (exploring) শুরু করতে পারেন।

৪. টুইটার সার্চ (Twitter Search)

“ই.টি.এম” (EMT) বা “প্যারাডেমিক” (Paramedic), হ্যাসট্যাগ (hashtags) এবং ফ্রেইজ (phrases)  দিয়ে সার্চ (Search) করে দেখুন কি ধরনের কন্টেন্ট আপনার সামনে আসে। এই টপিক (topics) গুলো নিয়ে কোন ধরনের মানুষ আলোচনা (discussing) করছে? কোন ধরনের কন্টেন্ট (content) তারা শেয়ার (sharing) করে এবং পছন্দ (interested in) করছে?

৫. রেডডিট সার্চ (Reddit Search)

রেডডিট থেকে আরও বেশী ইনসাইট (insight) সংগ্রহ করুন- মোস্ট পপুলার (most popular) “সাবরেডডিট” (subreddits) খুজে পাওয়ার জন্য সার্চ (search) অপশনে আপনার সাধারন ইন্টারেস্ট (general interest) অথবা অডিয়েন্স (audience) টাইপ (type) করুন। ফোরাম  (forums), যেখানে নির্দিষ্ট কন্টেন্ট পোস্ট (posted) করা হয় এবং ভোটের দেয়া হয়। পেজের সব চেয়ে উপরে যে কন্টেন্ট গুলো থাকে সেগুলোই সব চেয়ে জনপ্রিয় কন্টেন্ট আর এগুলো নির্দিষ্ট সাবরেডিট (subreddits) অডিয়েন্সরাই নির্বাচন করে থাকে; কোন নির্দিষ্ট অডিয়েন্স (audience) বা টপিক (topic) এর ট্রেন্ড (trending) জানার জন্য এটি প্রকৃত পক্ষেই একটি অসাধারন মাধ্যম।

৬. পিন্টারেস্ট সার্চ (Pinterest Search)

আরও একটি ফ্যাসান-ফরোয়ার্ড (fashion-forward) সাইটের জন্য আছে পিন্টারেস্ট (Pinterest), আপনি খুব সহজেই এখান থেকে আপনার নিস (niche) এর স্টাইল সম্পর্কিত সকল তথ্য বিস্তারিত খুজে বের করতে পারবেন- তারা কি পরতে (wear) পছন্দ করে। আপনি যদি পিন্টারেস্ট (Pinterest) থেকে “প্যারাডেমিক ট্যাঙ্ক টপ” (“Paramedic Tank Tops”) লিখে সার্চ করেন, তাহলে আপনি সবচেয়ে জনপ্রিয় পোষাক সম্পর্কে পিন (pins) গুলো পেয়ে যাবেন, যেগুলো একটি নির্দিষ্ট থিমের (theme) সাথে সম্পর্কিত/সংযুক্ত। যখন আপনি কিছু জনপ্রিয় পিন (pin) পেয়ে যাবেন, তখন যারা এই পিন (pin) গুলো পোস্ট করেছে তাদের প্রফাইলে (profile) ক্লিক (click) করে, লোকেরা (অথবা সম্ভাব্য ক্রেতা) কি পছন্দ করে, সে সম্পর্কে  আরও বেশী অনুপ্রেরনা (inspiration) পেতে পারেন।

৭. ব্লগ এবং পাব্লিকেশন (Blogs and Publications)

আপনার নিস (niche) সম্পর্কিত কোন নিউজ (news) এবং অপশন (opinions) এর সোর্স (source), আপনার ডিজাইনের (design) অ্যাডভার্টাইস (advertise) করার জন্য এটি একটি অন্যতম মাধ্যম হতে পারে। উদাহরন স্বরুপ, Jems.com একটি ওয়েবসাইট (website) যারা, এমার্জেন্সী মেডিকেল সার্ভিস কম্যুনিটির (Emergency Medical Service community) জন্য খবর এবং হাউজ ফোরাম (houses forums) কভার (covers) করে থাকে। আপনি কম্যুনিটি (community) এর আরও কাছে যেতে পারেন আর তাদের সম্পর্কে আরও জানতে পারেন এবং তারা কি ধরনের শার্ট (shirts) পছন্দ করে (বা পছন্দ করে আসছে) সে সম্পর্কে অনেক তথ্য খুজে বের করতে পারেন। এমনকি আপনার ডিজাইন আইডিয়া (design idea) সম্পর্কে কম্যুনিটির (community) মেম্বারদের (members) মতামত/মন্তব্য (feedback) পেতে পারেন।

ইনডাস্ট্রি লিডার (industry leader) ড্যান নিকাস (Dan Nikas) কি বলেছেন খেয়াল করুন, তিনি আরও কিছু উপায় বলেছেন, কীভাবে আপনি আপনার নিসের বিস্তারিত সম্পর্কে জানতে পারবেন। (১৪.৫০ মিনিট থেকে শুরু হবে)

  এরপর কি (What’s next)? এর পরবর্তী অধ্যায়ের বায়ার মার্কেট (Buyer Markets) সেকশনে আমরা গ্লোবাল মার্কেট (global markets) সম্পর্কে আলোচনা করবো; সেখানে আপনি জানতে পারবেন, উপরে বর্নিত টুল (tools) গুলো ব্যাবহার করে কিভাবে নিস রিসার্চ (niche research) করতে হয় এবং রিয়েল লাইফ এক্সাম্পল (real life examples) সম্পর্কে আরো অনেক ভিডিও টিউটোরিয়াল (video tutorials) পাবেন। মনে রাখবেন, যারা বাস্তবিক অর্থে ক্রিয়েটিভ (creative) Teespring শুধু তাদের জন্য। যাদের নিজেদের কোন অরিজিনাল (original work) কাজ অথবা ডিজাইন (designs) নেই, তারা আমাদের পলিসির (policies) সাথে সাংঘর্ষিক অর্থাৎ তারা আমাদের পলিসি অনুযায়ী Teespring এ সেল (sell) করতে পারবে না।

creator-menu

youtube-menu