দেখে নেয়া যাক, ফেসবুক অ্যাড (Facebook Ads) থেকে কিভাবে শুরু করবেনঃ আর ৮ টি ধাপ অনুসরন করে কিভাবে সফলতা অর্জন করবেন

আপনি যদি মনে করেন আপনার টার্গেট অডিয়েন্সের (target audience) জন্য আপনার মেসেজটি (message) নিখুত হয়েছে, এবং আপনার ডিজাইনটি (awesome design) অসধারন হয়েছে এবং সবশেষে আপনার ক্যাম্পেইনটি (campaign) Teespring এ লঞ্চ (launched) করে ফেলেন… তাহলে এখন কি করবেন? নীচে আমরা কয়েকটি ধাপের মাধ্যমে বিস্তারিত বর্ননা দিয়েছি আপনার প্রডাক্ট (products) সেল (sell) করার জন্য কীভাবে ফেসবুক অ্যাড (Facebook ads) লঞ্চ করবেন। মনে রাখবেন, আমাদের এই ফেসবুক অ্যাড টিপস (Facebook ad tips) গুলো শুধুমাত্র Teespring এ আপনার প্রডাক্ট (products) সেল (sell) করার জন্য পেইড অ্যাডভার্টাইজিং সেকশন (Paid Advertising section) এর অন্তর্ভূক্ত, আপনি যদি সাধারণ ফেসবুক অ্যাড (Facebook Ads) সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে চান, তাহলে আপনি বাফার (Buffer) এর মাধ্যমে এখান থেকে this guide চেক আউট (check out) করতে পারেন।

১ম ধাপ- আপনাকে জানতে হবে ফেসবুক (Facebook) কি চায়

ফেসবুক “about ads” পেজটি ভিসিট (Visit Facebook) করুন যেটি ফেসবুক ইউজার (Facebook users) দের উদ্দেশ্যেই বানানো হয়েছে (উদাহরন হিসেবে ধরা যেতে পারে, আপনার বায়ার/buyers)। ইন্ট্রোডাকশন ভিডিও (introduction video) টি দেখুন এবং এই পেজের কিছু FAQs (ফ্রিকুয়েন্ট আস্কিং কোয়েশ্চেন) গুলো পড়ুন; আপনি যখন বুঝতে পারবেন, ফেসবুক (Facebook) আসলে বায়ারদের (buyer) অ্যাড এক্সপেরিয়েন্স (ad experience) চায়, যেমন এটি থেকে আপনি আপনার অ্যাডের (ads) ডিজাইন (design) কোয়ালিটি (quality) সম্পর্কে বুঝতে পারবেন। উদাহরন স্বরুপ, ফেসবুক (Facebook) চায় অ্যাড (ads) গুলো যেন প্রডাক্ট সম্পর্কিত হয়, আর বায়ারদের (buyers) কাছে নন-ইন্ট্রাসিভ (non-intrusive) এবং ইন্টারেস্টিং (interesting) হয়।

২য় ধাপ-ফেসবুক (Facebook) থেকে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স (Target Audience) ক্রিয়েট (Create) করুন

এই প্রক্রিয়ার জন্য রিসার্চিং (Researching) এবং আপনার টার্গেট অডিয়েন্স (target audience) ক্রিয়েট অন্যতম প্রধান ধাপ। Training সেন্টারের (Training Center) বায়ার মার্কেট (Buyer Market) এবং ডিজাইন সেন্টার (Design Center) সেকশনে আমরা অডিয়েন্স রিসার্চ (audience research) এর বভিন্ন দিক সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আপনার সঠিক টার্গেট অডিয়েন্স (target audience) ক্রিয়েট করতে হলে ফেসবুকের (Facebook) অডিয়েন্স ইনসাইট (Audience Insights) টুল (tool) টি ব্যাবহার করতে হবে। উদাহরন স্বরুপ, আপনারর বায়ারের অবস্থান, তার বয়সসীমা, তাদের ইন্টারেস্ট (“interests”) ইত্যাদি জানার জন্য ফিল্টার (filters) এড (add) করুন। আপনি যদি আপনার ডিজাইনটি এমন ধরনের ওমেন (women) দের জন্য বানান, যারা ঘোড়া চালাতে পছন্দ করে, তাদের ইন্টারেস্ট হবে হর্স (horses), হর্স ব্যাক রাইডিং (horseback riding), এ ধরনের ব্রান্ড (brands) এবং প্রডাক্ট (products) সম্পর্কিত, বা ফ্যান পেজ (fan pages) ইত্যাদি। একটি নির্দিষ্ট নিসের (niche) জন্য যত বেশী সংখ্যক ফিল্টার (filters) যুক্ত করবেন, আপনার অডিয়েন্স তত ছোট/ন্যারো (narrow) হতে থাকবে।

৩ম ধাপ- পেসবুক পেজ ক্রিয়েট করা (Create a Facebook Page)

এরপর, আপনার আডিয়েন্স (audience) মাথায় রেখে একটি ফেসবুক পেজ (Facebook Page) বানাতে হবে। আপনি আপনার নিজের প্রফাইল (personal profile) থেকেই অ্যাড (ads) সেট আপ (set up) করতে পারেন, যাইহোক আপনার অ্যাড (ads) নির্বাচন এবং টার্গেটিং ক্যাপাবিলিটিস (targeting capabilities) খুবই সীমিত হতে হবে। সব চেয়ে ভাল হয় যদি ডেডিকেটেড পেজ (dedicated page) সেট আপ (set up) করেন (অথবা এমন একটি প্রাসঙ্গিক ফ্যান পেজ/fan page ব্যাবহার করুন, যা আপনি আগেই ক্রিয়েট/created করেছিলেন) এবং আপনার নিস (niche) সম্পর্কিত কন্টেন্ট দিয়ে এটিকে জনপ্রিয় করে তুলুন।

৪র্থ ধাপ- আপনার অ্যাড ক্যাম্পেইন (campaign) সেট আপ (Set up) করুন

এখন আপনি সংরক্ষিত টার্গেট অডিয়েন্স (target audience) পেয়ে গেছেন এবং আপনার পেজ (page) টিও সেট আপ (set up) হয়ে গিয়েছে সুতরাং এখন আপনার ফেসবুক অ্যাড (Facebook ad) ক্রিয়েট (create) করার উপযুক্ত সময়। Teespring প্রডাক্ট (products) সেল (sell) করার জন্য ৩ টি প্রধান অ্যাড (ads) ক্রিয়েটর (Creators) টেন্ড হল, পেজ পোস্ট এনগেজমেন্ট (Page Post Engagement, PPE), ক্লিক টু ওয়েবসাইট (Click to Website, CTW) এবং ওয়েবসাইট কনভার্সন (Website Conversion,WC)। আপনি আপনারর অডিয়েন্সের (audience) কাছ থেকে কি চান তার উপর নির্ভর করে প্রত্যেকটি অ্যাড টাইপ এর কিছু নির্দিষ্ট সুবিধা এবং অসুবিধা রয়েছে। আপনার অ্যাড টাইপ (ad type) টি সিলেক্ট করুন, আপনার সংরক্ষিত অডিয়েন্স সিলেক্ট (audience) করুন এবং এরপর এখন আপনি অ্যাড ইমেজ (ad image) ক্রিয়েট করার জন্য প্রস্তুত।

৫ম-অ্যাড ইমেজ তৈরী করুন

আপনার অ্যাড ইমেজের (ad image) মান, অ্যাড পারফরমেন্সের (ad images) উপর প্রভাব ফেলতে পারে; এই বিষয় গুলোর সাথে সম্পর্কিত স্কোর (score), সিপিএম (CPMs), সিআরটি (CTR) এবং কনভার্সন (conversion) , আপনার অ্যাডের কোয়ালিটির জন্য প্রভাবিত হতে পারে। আপনি অবশ্যই নিশ্চিত করবেন ইমেজ (images) যেন দৃষ্টি নন্দন হয় এবং আপনার অ্যাড (ad) টি অপটিমাইজ (optimize) করার জন্য ফেসবুক অ্যাড (Facebook’s Ad) গাইডলাইনটি অনুসরন করুন। আপনার অ্যাড ইমেজ (ad image) টি (PPE, CTW, or WC) উপর নির্ভর করে বানাতে হবে, কারন প্রত্যেকটির জন্য ভিন্ন ভিন্ন আকারের ইমেজ ব্যাবহৃত হয়ে থাকে।

৬ষ্ঠ ধাপ- Teespring একাউন্টে () ফেসবুক পিক্সেল () যুক্ত করুন।

আপনি যখন আপনার Teespring ক্যাম্পেইনে (campaign) অনেক সংখ্যক অ্যাড (several ads) চালু করবেন (উদাহরনঃ ভিন্ন ভিন্ন টার্গেট অডিয়েন্স/different target audiences এর জন্য) আপনাকে জানতে হবে কোন অ্যাড (ad) গুলো আপনাকে অধিকাংশ সেল (sales) এনে দিচ্ছে এবং কোন অডিয়েন্স (audience) থেকে বেশী কনভার্শন (conversions) হচ্ছে। আপনি আপনার একাউন্ট সেটিং (account “Settings”) থেকে আপনার Teespring একাউন্টে (account) ফেসবুক পিক্সেল (Facebook pixel) যুক্ত করতে পারেন। পিক্সেলটি যখন একটিভ হবে তখন আপনি অ্যাড ভিউয়ার (ad viewers) এর ট্র্যাক (track) অনুসরন করতে পারবেন এবং আপনার অ্যাড গুলো কতটুকু যথার্থ সেটি বুঝতে পারবেন (যেমনঃ সেখান থেকে কত সংখ্যক সেল/sales পেলেন, পেজের ভিজিটরের/page visitors সংখ্যা কত, কত সংখ্যক পেজ চেক আউট/checkout করেছেন)। পিক্সেল (pixels) ট্র্যাক (tracking) করে আপনার Teespring ব্যাবসা যত বর্ধিত করবেন, আপনার সাফল্য পাওয়ার সম্ভবনা তত বাড়বে। সুতরাং এটা (পিক্সেল) ব্যাবহার করার অভ্যাস এখনই গড়ে তুলুন।

৭ম ধাপ- অ্যাড (ads) লঞ্চ করুন এবং ফলাফল পর্যবেক্ষন করুন

যখন আপনি অ্যাড ইমেজ (ad image) এবং অডিয়েন্স সেট (audience set) পেয়ে যাবেন, তখনই আপনি অ্যাড ক্যাম্পেইন (campaign) লঞ্চ করে ফেলুন। এই পর্যায়ে আপনাকে আপনার অ্যাড ইমেজের (ad image) বাজেট নির্ধারন করতে হবে এবং কত দিন আপনি অ্যাড ক্যাম্পেইন (ad campaign) চালিয়ে যেতে চান সেটির সিদ্ধান্ত নিতে হবে। সাধারনত আমরা পরামর্শ দিয়ে থাকি যে, অ্যাডের জন্য প্রাথমিক লাইফটাইম (initial lifetime) বাজেট $১০ ডলার প্রতি দিন দিয়ে শুরু করুন এবং পরবর্তী ২৪-৪৮ ঘন্টা ফলাফল পর্যবেক্ষন করুন; মেট্রিক (metrics) এর প্রতি দৃষ্টি রাখুন যেমন কনভার্শন (conversions), কস্ট (costs), রিচ রিলেভেন্সি স্কোর (reach relevancy score), ক্লিক থ্রু রেট (click through rate, CTR) প্রভৃতি। পরবর্তীতে এ বিষয়ে আমরা আরও বিস্তারিত আলোচনা করবো।

৮ম ধাপ- আপনার অ্যাড স্কেল (Scale) করুন অথবা বন্ধ করে দিন

আপনি ফেসবুক অ্যাডের (Facebook ad’s) ফলাফল পর্যালোচনা করে পরবর্তী ধাপ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহন করবেন। আপনার অ্যাড এর যদি কনভার্শন (conversions) এবং হাই এনগেজমেন্ট (high engagement) এনে দিতে থাকে তাহলে আপনি হয়ত অ্যাডটি (ad) “স্কেল আপ (“scale up”) করতে চাইবেন এবং বাজেট বৃদ্ধি করে আরও টাকা ইনভেস্ট (invest) করে অধিক অডিয়েন্সের (larger audience) এর কাছে পৌছোতে চাইবেন। আপনি যদি একই টার্গেট অডিয়েন্স (target audience) নতুন টার্গেট অডিয়েন্সের জন্য একই ধরনের ডিজাইন (design) এর জন্য কোন সাকসেসফুল নিস (successful niche) অথবা ডিজাইন পেয়ে যান তাহলে একই ধরনের ডিজাইন লঞ্চ করে “স্কেল আউট” (“scale out”) করতে পারেন। আপনি যদি কোন স্কেল বা কনভার্শন না দেখেন, তাহলে আপনি অ্যাডটি (ad) কিল (kill) করবেন এবং আপনার টার্গেট অডিয়েন্স (target audience), ডিজাইন (design) এবং অ্যাড ইমেজ (ad image) নিয়ে পর্যালোচনা করবেন।

creator-menu

youtube-menu